নিজের প্রত্যাবর্তন ম্যাচে হেরেছেন টেনিস তারকা সেরেনা উইলিয়ামস

রবিবার ফেড কাপের ১ম রাউন্ডে  মাঠে দেখা গেছে এই আমেরিকান টেনিস তারকাকে।

দীর্ঘ ১ বছর পর আবারো টেনিস কোর্টে ফিরে এসেছেন এই বিশ্বসেরা তারকা। নিজের প্রথম সন্তানের জন্মের কারনে অনেকদিন টেনিসকে দূরে সরিয়ে রাখেন এই টেনিস তারকা। সন্তান হবার পর এই প্রথম বারের মতো কোনো অফিশিয়াল ম্যাচে দেখা গেছে তাকে।

ম্যাচ শেষে তিনি গনমাধ্যমকে বলেছেন ” আমি মনে করিনি আমি এত তাড়াতাড়ি মাঠ ফিরতে পারবো। এই ম্যাচ হেরে গেলেও আমি মনে করি আমি সঠিক পথে আছি “। সেরেনা ও তার বড় বোন ভেনাস উইলিয়ামস নেদারল্যান্ডের লেসলি কারহবি ও ডেমি সুরস এর কাছে ৬-৩, ৬-২ ব্যাবধানে হেরে যায়। কিন্তু সিঙ্গেলসে ভেনাস উইলিয়ামস ঠিকই জয় পেয়েছেন। তিনি রিচেল হোগেনক্যাম্পকে ৭-৫,৬-১ ব্যাবধানে পরাজিত করে। তার এই জয়ে ৩-০ লিডে এগিয়ে যায় যুক্তরাষ্ট্র ।

সেরেনা আরো বলেছেন ” আসলে আমি আরো ভালো কিছু আশা করেছিলাম, আমি সার্ভগুলোতে যথেষ্ট পরিমান স্পিড দিতে পারিনি। আমার আরো ভালো করার দরকার ছিলো। এটা মাএ শুরু এখনো অনেক পথ বাকি, আশা করি ভালো কিছুই হবে”।

এই ম্যাচটা হারলেও তা ইতিবাচক দৃষ্টিতে নিয়েছেন সেরেনা। ২৩ বারের গ্রান্ডস্লামজয়ী এই খেলোয়াড়রের  জন্য নিজের সেরা ছন্দে ফিরে আসাটাই এখন সবচেয়ে বড়ো চ্যালেঞ্জ। ৩৬ বছর বয়সী এই বিশ্বসেরা টেনিস তারকার কাছ থেকে অনেক প্রত্যাশা রয়েছে তার শুভানুধ্যায়ীদের। তিনি জানান ” আমি যদি কম প্রত্যাশা নিয়ে মাঠে যাই, তাহলে আমাকে তা করা বন্ধ করে দিতে হবে, যা আমি এতোদিন ধরে করে আসছি,  তা আমি কোনো দিনও হতে দিবো না। আমি মাঠে নামার আগে সবচেয়ে বেশি প্রত্যাশা নিয়ে নামি, যা আমাকে ম্যাচে ভালো করার অনুপ্রেরণা যোগায়”।

গত বছর ডিসেম্বরে দুবাইতে একটি প্রদশর্নী ম্যাচে অংশ নিয়েছিলেন সেরেনা উইলিয়ামস । সেখানে তিনি ফরাসী ওপেনের চ্যাম্পিয়ন জেলেনা ওস্টাপেন্কোর সাথে হেরে যান। ইনজুরি থেকে এসে ভালো করা যে কোনো প্লেয়ারের জন্যই কঠিন। তিনি ও তার বোন মোট ১৪ বার গ্রান্ড স্লাম ডাবলস জিতেছেন। এই ম্যাচের আগে ২০১৬ সালের রিও অলিম্পিকে এই বোনদের  একসাথে কোর্টে দেখা গেছিলো। এপ্রিলের সেমি-ফাইনালে তাদের প্রতিপক্ষ হিসেবে দেখা যাবে ফ্রান্সকে।

আরমান হাসান (প্রতিবেদক), মাঠের খেলা

 

 

Be the first to comment on "নিজের প্রত্যাবর্তন ম্যাচে হেরেছেন টেনিস তারকা সেরেনা উইলিয়ামস"

Leave a comment

Your email address will not be published.


*