তিনদিনেই কুপোকাত টাইগাররা

ঢাকা টেষ্টে স্বাগতিক বাংলাদেশকে ২১৫ রানের বিশাল ব্যাবধানে হারিয়ে সিরিজ নিজেদের করে নিলো লংকানরা।

ব্যাটসম্যানদের চরম ব্যাটিং ব্যর্থতায় মাত্র আড়াই দিনেই ধরাশায়ী স্বাগতিক বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ইনিংসে ৩৩৯ রানের টার্গেটে ৩য় দিনের ২য় সেশনেই ১২৩ রানে অল আউট হয় বাংলাদেশ।

ঢাকা টেস্টে বাংলাদেশের ২য় ইনিংস যেন প্রথম ইনিংসেরই পুনরাবৃত্তি ছিলো। লংকান বোলারদের সামনে অসহায় আত্মসমর্পন করতে হয়েছে টাইগার ব্যাটসম্যানদের। প্রথম ইনিংসে মাত্র ১১০ রানে অলআউট হওয়ার পর স্বাগতিক ভক্ত সমর্থকরা আশা করেছিলো ২য় ইনিংসে তামিম-মুমিনুলরা লংকানদের সাথে লড়াই করবে। কিন্তু এই ইনিংসেও চরম ব্যাটিং ব্যার্থতায় মাত্র ১২৩ রানে সবাই প্যাভিলিয়নে পথ ধরে।

আগের দিনের ৮ উইকেটে ২০০ রান নিয়ে তৃতীয় দিন শুরু করে লঙ্কানরা। স্কোর বোর্ডে আরও ২৬ রান যোগ হওয়ার পর পরপর পরপর দুই বলে দুই লংকান ব্যাটসম্যানকে আউট করলে বাংলাদেশের সামনে টার্গেট দাড়ায় ৩৩৮।

কন্ডিশনের বিচারে বড় এই সংগ্রহ তাড়া করতে নেমে দুই রান করে তামিম দিলরুয়ান পেরেরার শিকারে পরিনত হন।  কিন্তু এরপরই তৃতীয় ওভারে লাকমালকে জোড়া বাউন্ডারি হাকিয়ে মুমিনুল বুঝিয়ে দেন আক্রমনকে সেরা রক্ষন হিসেবে বেছে নিয়েছে দল। তবে মুমিনুল-ইমরুলের ইতিবাচক ব্যাটিংয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা চালিয়েও ব্যর্থ হয় স্বাগতিকরা। মুমিনুল ৩৩, মুশফিক ২৫ আর ইমরুল ১৭ রান করে আউট হবার পর আর কেউ প্রতিরোধ গড়তে পারেনি।

এই ইনিংসেও হার্ড হিটার সাব্বির রহমান ছিলেন ব্যর্থ। তাই মোসাদ্দেককে বাদ দিয়ে টি-২০ স্পেশালিশ্ট হিসেবে খ্যাত এই ব্যাটসম্যানকে টেস্টে খেলানো নিয়ে প্রশ্ন রয়েই যায়। লংকান স্পিনারদের মধ্যে আখিলা ধনঞ্জয়া ২৪ রান খরচায় নিয়েছেন ৫ উইকেট। ৪ উইকেট নিয়ে টেস্টে বা হাতি বোলারদের মধ্যে সর্বোচ্চ ৪১৫ উইকেটের মালিক রঙ্গনা হেরাথ।

চট্টগ্রাম টেস্ট ড্র হবার পর ঢাকা টেস্ট জয়ের সাথে সাথে ১-০তে সিরিজও জিতে নিয়েছে শ্রীলংকা।

তোফায়েল আহমদে খান (প্রতিবেদক), মাঠের খেলা

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *