১ম দিন শেষে বোলারদের দাপট

ঢাকা টেষ্টের প্রথম দিনে মোট উইকেট পড়েছে ১৪টি।
শেষ কয়েকটি সিরিজে মিরপুরের পিচ মানেই স্পিনারদের স্বর্গরাজ্য। এই ম্যাচেও যে স্পিনাররাই দাপট দেখাবেন তা আগেই অনুমেয় ছিল। সে কথা মাথায় রেখেই স্বাগতিক দলে ফিরিয়ে আনা হয় অভিজ্ঞ স্পিনার আব্দুর রাজ্জাক। বর্ষীয়ান এই ক্রিকেটারের রাজকীয়ভাবে ফেরার দিনে অতিথিরা মাত্র ২২২ রানে গুটিয়ে যায়, যেখানে রাজ্জাক দখল করেন ৪ উইকেট।
টসে হেরে বোলিং করতে এসে শুরুতেই রাজ্জাকের আঘাত, যার প্রথম শিকার করুনারত্নে। তারপর দলের স্কোর ৯৬তেই প্যাভিলিয়নে টপ অর্ডারের ৪ ব্যাটসম্যান। রাজ্জাক ভেল্কিতে একে একে কুশাল মেন্ডিস, গুনাথিকালা এবং কাপ্তান চান্দিমাল আউট। লঙ্কার লেজ যখন গুটিয়ে যাওয়ার অপেক্ষা, তখন অতিথিদের হয়ে একাই লড়েছেন রোশন সিলভা। ৫৬ রানে তাইজুল তাকে আটকালে, লঙ্কানরাও আটকে যায় ২২২ এ। বড়ভাইয়ের দেখানো পথে তাইজুলও নেয় ৪ উইকেট। বাকী ২ উইকেট যায় দ্যা ফিজের দখলে।

ব্যাটিংয়ে নেমে টাইগারদে অবস্থা আরো ছন্নছাড়া। আত্মাহুতি দেয়ার যেন প্রতিযোগিতা নেমেছিল এদিন তামিম-মুমিনুল-মুশফিকরা। তামিমকে কিন্তু স্পিনার আটকায়নি। লাকমলকে দিয়ে যেন ক্যাচ প্র্যাকটিস করালেন তামিম। আর প্রথম টেষ্টে দুই ইনিংসে ২ সেঞ্চুরী করা ব্যাটসম্যান মুমিনুলের দৃষ্টিকটু রান আউট। আর মুশফিক যেন বুঝতেই পারছিলেন না কোন বলটা খেলতে হবে, আর কোন বলটা ছাড়তে হবে। খেলার বল ছাড়তে গিয়ে লাকমলের বলে বোল্ড সদ্য বাবা হওয়া মুশফিক। আর ভুতুরে ব্যাটিংয়ে দিনের শেষে ইমরুল ফিরেছেন ১৯ রানে। দিন শেষে টাইগারদের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ৫৬ রান। ক্রিজে আছেন লিটন দাস এবং মেহেদী মিরাজ। ২য় দিনে লংকানদের বোলারদের হাত থেকে দলকে বাচাতে হলে এই দুই ব্যাটসম্যানকে দায়িত্ব নিয়ে ব্যাটিং করা ছাড়া আর কোন পথ খোলা নেই টাইগারদের সামনে।

তোফায়েল আহমদে খান (প্রতিবেদক), মাঠের খেলা

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *