এই মূহুর্তে ভিন্ন পরিকল্পনা দরকার প্রোটিয়াদের : জেপি ডুমিনি

টানা হারের বৃও থেকে বের হতে পারছেনা সাউথ আফ্রিকা। 

ভারতের  সাথে তৃতীয় ওডিআইতে ১২৪ রানের বিশাল ব্যবধানে হেরে যায় প্রোটিয়া বাহিনী। আগের দুই ওডিআইয়ের মতো ভারতীয়দের সামনে অসহায় আত্মসমর্পন করে তারা। নিউল্যান্ডে ৬ ম্যাচ ওডিআই সিরিজের তৃতীয়টিতে হেরে সিরিজ হারের শংকা উঁকি দিচ্ছে প্রোটিয়া শিবিরে। প্রথমে ব্যাটিং করে ভারতীয় কাপ্তান বিরাট কোহলির অনবদ্য এক শতকে ৬ উইকেট হারিয়ে স্কোরবোর্ডে ৩০৩ রান জমা করে কোহলি বাহিনী। জবাব দিতে নেমে মাত্র ৪০ ওভার ব্যাটিং করে ১৭৯ রানে অলআউট হয়ে যায় প্রোটিয়ারা। এই ম্যাচের মধ্য দিয়ে ওডিআইতে নিজের ৩৪তম শতকের কোটা পূরণ করেন ভারতীয় কাপ্তান।

ওডিআই সিরিজের শুরু থেকে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়েছে সাউথ আফ্রিকা। এ ছাড়াও ভারতীয় স্পিনারদের সামনে মাথা তুলে দাঁড়াতেই পারেনি প্রোটিয়া বাহিনী। প্রথম ৩ ম্যাচে ভারতীয় স্পিনারদের দাপট দেখেছে ক্রিকেট বিশ্ব। প্রথম ৩ ম্যাচে লেগ স্পিনার  যুবেন্দার চাহাল ও বাঁহাতি চায়নাম্যান বোলার কুলদিপ যাদব মিলে নিয়েছেন ২১ উইকেট। চাহাল ৩ ম্যাচে  পেয়েছেন ১১টি উইকেট  আর অন্যদিকে যাদব ৩ ম্যাচে পেয়েছেন ১০টি উইকেট।

তৃতীয় ম্যাচ হারার পর ডুমিনি গনমাধ্যমকে বলেছেন, “ভারতকে হারানোর জন্য আমাদের নতুন করে ভাবতে হবে। এখানে কোনো সন্দেহ নেই যে টানা ৩ ম্যাচ হারার পর আমরা এই সিরিজে অনেকটাই ব্যাকফুটে চলে গেছি। তাই আমাদেরকে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সিরিজে ঘুঁরে দাঁড়াতে হবে। আমাদের দলের ব্যাটসম্যানরা ভারতীয় স্পিনারদের ভালোমতো খেলতে পারেনি। তাই আমাদের প্রতিপক্ষ স্পিনারদের খেলার উপায় বের করতে হবে।“

তিনি আরো বলেছেন, “আমরা পরিকল্পনা নিয়েই মাঠে নেমেছিলাম, কিন্তু আমাদের বোলাররা পরিকল্পনার সঠিক বাস্তবায়ন করতে পারেনি। আমাদের দলের মূল ৩ জন প্লেয়ার ইনজুরিতে পড়াতে মানসিকভাবে প্লেয়াররা একটু পিছিয়ে আছি। বিরাট কোহলির ব্যাটিং আমাদেরকে ম্যাচ থেকে অনেকটা  ছিটকে দিয়েছে, কোহলি অসাধারন খেলেছে, ১০০ স্ট্রাইক রেটে শতক হাঁকানো আসলেই প্রমান করে কেন সে বিশ্বের সেরা ব্যাটসম্যান। ইন্ডিয়া কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ পার্টনারশিপ করেছে,  যা আমাদেরকে ম্যাচ থেকে পুরোপুরিভাবে ছিটকে  দিয়েছে।“

শুধু মাত্র প্রথম ম্যাচে ফাফ ডু প্লেসিসের ১২০ রান ছাড়া আর কোনো প্রোটিয়া ব্যাটসম্যান ভারতীয় বোলারদের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি। তাই সিরিজ বাচাতে হলে স্বাগতিক ব্যাটসম্যানদেরদেই  দায়িত্ব নিতে হবে, তাহলেই ভালো কিছু আশা করা যায় বলে মানে করেন ডুমিনি। সাউথ আফ্রিকার সামনে এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হারের বৃও থেকে বেরিয়ে জয়ের ধাঁরাতে ফেরা।

আরমান হাসান (প্রতিবেদক), মাঠের খেলা

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *