পেমেন্ট ইস্যুতে অবজ্ঞার মুখে বিসিসিআইয়ের ওয়েবসাইট

গত শনিবার যখন ভারত অনূর্ধ্ব -১৯ দল অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে বিশ্বকাপ জয় করে তখন তাদের জয়ের এই খবর বিসিসিআইয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশে ব্যর্থ হয়।

তাছাড়া সেদিন তারা এই ওয়েবসাইট খুঁজেই পাচ্ছিল না। আইপিএল চেয়ারম্যান ও ক্রিকেট সংগঠক লোলিত মোদিকে আর্থিক দুনীতির অভিযোগে  ২০১০ সালে সকল ধরনের ক্রিকেটিও কার্যক্রম হতে বহিষ্কৃত করেছে বিসিসিআই। এই লোলিত মোদিই ১২ বছর আগে এই ওয়েবসাইট প্রতিষ্ঠা করেছিল, যার ফলে ওয়েবসাইটের রক্ষনাবেক্ষনের সব দায়িত্ব তার অধীনেই ছিলো। বিসিসিআইয়ের বিভিন্ন সূএ হতে জানা গেছে এই ওয়েবসাইটের ডোমেন নেম এখনও  লোলিত মোদির মালিকানায়। তিনি এই ওয়েবসাইটের  নবায়নযোগ্য খরচ প্রদান করেননি। আর এই খরচ প্রদানের শেষ তারিখ ছিলো ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮।

যেহেতু ওয়েবসাইটটি মোদির নিয়ন্ত্রণাধীন তাই বিসিসিআই তার কাছে একটি কোর্ট অর্ডার পাঠিয়েছে, সেই সুবাদে তিনি পুরো নবায়নযোগ্য খরচ প্রদান করাতে এখন ওয়েবসাইটি আবার স্বরূপে ফিরেছে। মোদীর ব্যক্তিগত আইনজীবী গনমাধ্যমকে বলেছেন যে, “মোদি এই ব্যাপারে সজাগ ছিলেননা।“

মোদি এই ওয়েবসাইটের জন্য ডোমেন নেম ক্রয় করেছিলেন ২০০৬ সালে (রেজিস্টার. কম ও নেমজেট.কম) হতে। এই ডোমেনের  মালিকানা এখনো তার অধীনে আছে, তিনি ২০১০ সালে বিসিসিআই হতে বহিষ্কৃত হবার পরও এই ডোমেনে নিজের মালিকানায় রেখেছে। এই ডোমেনের মেয়াদ ২০০৬ সাল হতে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ছিলো। বিসিসিআই গনমাধ্যমকে জানান যে আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী  এই ডোমেন মোদির নামেই ছিলো, আর মোদির নামেই থাকবে, তাই তাকে এই ওয়েবসাইটের সকল রক্ষনাবেক্ষন খরচ বহন করতে হবে। ভারতীয় কিছু গনমাধ্যমের মতে যেহেতু মোদি বোর্ডের কোনো কাজের সাথে জড়িত নয়, তাই তার নামে ডোমেন রাখার কোনো যুক্তিকতা নেই। তাই বিসিসিআইয়ের উচিৎ নতুন ডোমেন ক্রয় করা।

 

আরমান হাসান (প্রতিবেদক), মাঠের খেলা

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *