বিশ্বের সেরা খেলোয়াড়রা কেমন করেছেন আইসিসি টুর্নামেন্টে?

সবসময় খেলার মান একরকম বজায় রাখা সম্ভব হয় না। কিছু কিছু সময় অনেক ভালো খেলোয়াড়দেরকেও অনেক সংগ্রাম করতে হয়।

আমরা সব সময় একজন খেলোয়াড়ের কাছে ভালো খেলা আশা করেতে পারি না। এটা একটা স্বাভাবিক ব্যাপার বিশেষ করে খেলোয়াড়রা যখন চাপে থাকেন। আইসিসি নকআউট ম্যাচ খেলার সময় অনেক খেলোয়াড়কেই এমন পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হয়েছে। ২০০৯ সালের টি-২০ বিশ্বকাপে শহীদ আফ্রিদি ম্যান অফ দা ম্যাচ হন অপর দিকে ধোনী ২০১১ সালের বিশ্বকাপে সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার পেলেও আইসিসির নক আউট ম্যাচে তারা ভালো করতে পারেনি। এমন ৫ জন খেলোয়াড়কে তুলে ধরা হলো যারা আইসিসির ম্যাচে ভালো খেলা উপহার দিতে পারেনি।

৫. ব্রেন্ডন ম্যাককালাম

নিউজিল্যান্ডের সেরা অধিনায়ক ব্রেন্ডন ম্যাককালাম আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১৪ হাজার রান করেছেন। তিনি তার দেশের জন্য প্রথম বিশ্বকাপের ফাইনালে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন কিন্তু আইসিসি নক আউট ম্যাচে তার রেকর্ডটি  ভালো ছিল না। এমনকি যারা ১০০ রানের নিচে ছিলেন তাদের মধ্যেও তার গড় ছিল মাত্র ১৩.২০। মোট ১০টি ম্যাচে তিনি সর্বমোট ৫০ রান করেন এবং ৩ বার শুন্য রানে আউট হয়েছেন। ২০১৫ সালের আইসিসি বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে মিশেল স্টার্চের বলে প্রথম ওভারেই আউট হন। আইসিসির বিশ্বকাপের নকআউট ম্যাচগুলোতে তাঁর রেকর্ডটি খুবই খারাপ ছিল। তিনি সর্বমোট ১০৬ রান করে যার গড় ছিল ১১.৭৭ করে।

৪. অনিল কুম্বলে

অনিল কুম্বলে ভারতের সবচেয়ে বেশি উইকেট শিকার করেন এবং ওয়ানডেতে মাত্র ১৩ জন ৩০০ উইকেট পাওয়া বোলারদের মধ্যে তিনি একজন। নিশ্চিতভাবে তিনি ভারতের সেরা স্পিনার। তবে নকআউট বিশ্বকাপে তার রেকর্ড মোটেও ভালো না। বিশ্বকাপে মোট ১৮ টি ম্যাচে তিনি ৩১ টি উইকেট নিয়েছিলেন । কিন্তু তার রানের গড় ছিলো মাত্র ২২.৮৩ এবং স্ট্রাইক রেট ছিলো ৩৩.৫।

৩. ইনজামাম-উল-হক

ইনজামাম-উল-হক পাকিস্তান ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় ব্যাটসম্যান এবং ক্রিকেটের ইতিহাসে মাত্র ১০ জন ব্যাটসম্যানের মধ্যে তিনি একজন, যিনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ২০ হাজার রান করেছেন। একদিনের ম্যাচে তার সংগ্রহ ১১০০০ রানেরও বেশি। এই তালিকায় থাকার পরও  আইসিসির নকআউট ম্যাচে তার পারফরমেন্স ছিল খুবই  হতাশাজনক। তিনি এ যাবৎ পাঁচটি  বিশ্বকাপে খেলেছেন এবং ১৯৯২ সালে তাঁর প্রথম প্রচেষ্টায় পাকিস্থান শিরোপা জিতেছে, যদিও টুর্নামেন্টে তাঁর রেকর্ড ভালো ছিলো না। মোট ৩৫টি ম্যাচে তিনি সবমিলিয়ে ৭১৭ রান করেন যার গড় ছিল মাত্র ২৩.৯০ এর নিচে। ৮টি  নকআউট ম্যাচে তিনি ২৫.১৬ গড়ে মাত্র ১৫১ রান করেছিলেন।

২. লাসিথ মালিঙ্গা

লাসিথ মালিঙ্গা ৩০০ টি ওডিআই উইকেট দখলকারী খেলোয়াড় এবং সর্বশেষ টি-২০  টুর্নামেন্টে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উইকেট অর্জনকারী হয়েছেন। তবুও ডানহাতি ফাস্ট বোলার, যিনি শ্রীলঙ্কার হয়ে টি-টোয়েন্টি  বিশ্বকাপ জিতেছেন, তার আইসিসি নক আউট ম্যাচে দুর্দান্ত কোন রেকর্ড নেই। আইসিসি টুর্নামেন্টের সেরা উইকেট শিকারী হিসাবে তাঁর উপস্থিতি এই তালিকায় সব খেলোয়াড়দের মধ্যে সবচেয়ে বড় আশ্চর্যের ব্যাপার। সাতটি আইসিসির নক আউট ম্যাচে তিনি মাত্র ১০ টি উইকেট নেন। সামগ্রিকভাবে মোট ১৪টি ম্যাচে তিনি মাত্র ১৪ টি উইকেট সগ্রহ করেছিলেন যার গড় ছিল ৩৪.৭১।

১. এবিডি ভিলিয়ার্স

তিনি আধুনিক যুগের শ্রেষ্ঠ ক্রিকেটারদের একজন। তিনি যখন তালে থাকেন তখন তাকে আউট করা খুবই কঠিন হয়ে পড়ে।  তিনি ৫জন ব্যাটসম্যানদের মধ্যে একজন যার ওডিআই ম্যাচে গড় ৫০ এর উপর এবং আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ২০০০০ রান অর্জনকারীদের মধ্যে তিনি ১১ তম। ওডিআই ম্যাচে ২৪ টি সেঞ্চুরি ও ৫৩টি অর্ধশত করা এই ব্যাটসম্যানের আইসিসি নক আউট এ গড় মাত্র ২৮.৬৬। আর স্ট্রাইক রেট ৮৬.৮৬। অনেক রেকর্ড তার থাকলেও ৩৩ বছর বয়সী এই খেলোয়াড় বাকি দিনগুলোতে তার এই দুর্নাম কাটিয়ে উঠতে পারবেন কিনা সেটা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে।

মানিক ইমদাদ (প্রতিবেদক), মাঠের খেলা

 

 

Be the first to comment on "বিশ্বের সেরা খেলোয়াড়রা কেমন করেছেন আইসিসি টুর্নামেন্টে?"

Leave a comment

Your email address will not be published.


*